বিচার চেয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে যাবে ফিলিস্তিন

প্রকাশিত: ১:৫২ অপরাহ্ণ, মে ২৫, ২০২১

ফিলিস্তিনের গাজা অঞ্চলে প্রায় দুই সপ্তাহের সময়ে ইসরাইলি বাহিনীর বিমান ও কামান হামলায় অন্তত ২৪৩ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে শিশু রয়েছেন ৬৬ জন। এদিকে গাজায় ইসরাইলি বাহিনীর হামলার বিচার চেয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ফিলিস্তিন। শুক্রবার হারেৎজ সংবাদ মাধ্যমের একটি প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে এ তথ্য। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শতেয়াহ আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে যাওয়ার জন্য ঘোষণা দিয়েছেন। সা¤প্রতিক সময়ে গাজায় ইসরাইলি বাহিনীর হামলার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ করবে ফিলিস্তিন। গাজা অঞ্চলে হামলা চালিয়ে যে ধ্বংসযজ্ঞ চালানো হয়েছে তার বিচারের জন্য অভিযোগ নিয়ে আইসিসিতে যাওয়ার পরিকল্পনা করছে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ। সাম্প্রতিক সময়ে গাজায় ইসরাইলি বাহিনীর চালানো হামলা যুদ্ধাপরাধের শামিল। ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নারী ও শিশুদের গণহত্যা করার অপরাধে ইসরাইলকে আন্তর্জাতিক আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। তাদের হামলায় গাজায় অন্তত ২০টি পরিবার সম্পূর্ণ নিশ্চিহ্ন হয়েছে। এছাড়াও পুরো গাজা উপত্যাকাজুড়ে হামলার ক্ষত হয়েছে। এদিকে মিশরের মধ্যস্থতায় ফিলিস্তিন-ইসরাইলের যুদ্ধবিরতি কার্যকর হওয়ার কিছুক্ষণ পরই জেরুজালেমে আল-আকসা মসজিদে ফের হামলা চালিয়েছে ইহুদিবাদী ইসরাইলি বাহিনী। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। অপরদিকে, গাজায় হামাসের সঙ্গে ইসরাইলের অস্ত্রবিরতি কার্যকরের ২৪ ঘণ্টা পেরোনোর পরও গাজায় উত্তপ্ত অবস্থা বিরাজ করছে। শনিবার সেখানকার কয়েকজন বাসিন্দা অভিযোগ করেছেন, ইসরাইলি ড্রোন এখনো টহল দিচ্ছে। গাজার সবখানে তার বিকট আওয়াজ শোনা যাচ্ছে। এর আগে শুক্রবার জেরুজালেমে আল আকসা মসজিদে ঢোকার চেষ্টা করলে ফিলিস্তিনিদের ওপর গুলি চালায় ইসরাইলি বাহিনী। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। ফিলিস্তিনিরা পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করলেও ইসরাইলি নিরাপত্তা বাহিনীর অস্ত্রের সামনে টিকতে পারেনি। জেরুজালেমের পাশাপাশি ইসরাইলবিরোধী বিক্ষোভ হয়েছে পশ্চিম তীরসহ বেশ কয়েকটি জায়গায়। ইসরাইলি সেনাদের দমনপীড়নের বিরুদ্ধে রাস্তায় নামেন শত শত ফিলিস্তিনি। জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে ইসরাইলের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানান তারা। এ সময় বিক্ষোভকারীদের হটাতে গুলি চালানো হয়। একপর্যায়ে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে রাস্তা অবরোধ করে রাখে ফিলিস্তিনিরা। টানা ১১ দিনের সংঘর্ষ শেষে গাজায় যুদ্ধবিরতির জয়-পরাজয়ের হিসাব কষতে শুরু করেছে হামাস ও ইসরাইল। আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় এ যুদ্ধবিরতিকে নিজেদের বিজয় বলে দাবি করেছেন হামাস প্রধান ইসমাইল হানিয়া। তবে যুদ্ধবিরতির কোনো নিশ্চয়তাই পাচ্ছে না ফিলিস্তিনিরা। সব সময় শঙ্কার মধ্যে দিন কাটছে তাদের।

বিবিসি, আল-জাজিরা।