শ্লীলতাহানি থেকে বাঁচতে চলন্ত বাসের জানালা দিয়ে লাফ দিলেন তরুণী

প্রকাশিত: ৩:০৯ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৭, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টারঃ সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে ধর্ষণ থেকে বাঁচতে চলন্ত বাস থেকে লাফ দেওয়া সেই তরুণীকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার মধ্যরাতে তাকে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনরা।

তিনি মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। এছাড়া হাতেও আঘাত পেয়েছেন।

এদিকে, এ ঘটনায় তরুণীর বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৩ জনকে আসামী করে দিরাই থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

রোববার (২৬ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় দিরাইয়ে চলন্ত বাসে ওই তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় বাসের চালক ও তার সহযোগী। ধর্ষণ থেকে বাঁচতে বাসের জানালা দিয়ে লাফ দেন তিনি।

তরুণী দিরাই সরকারি ডিগ্রি কলেজের স্নাতক শ্রেণীর ছাত্রী। তিনি সিলেটের লামাকাজি এলাকার বোনের বাড়ি থেকে বাসে করে দিরাইয়ে নিজ বাড়িতে যাচ্ছিলেন।

রোববার রাতে ওই তরুণীকে ওসমানী হাসপাতালে হাসপাতালে নিয়ে আসেন তার বোন জামাই। তিনি বলেন, দুপুরে লামাকাজি থেকে আমি তাকে বাসে তুলে দিয়েছিলাম। সন্ধ্যায় দিরাই বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছার আগে বাস ফাঁকা হয়ে যায়। এসময় চালক ও হেলপার তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। জীবন বঁচাতে সে বাসের জানালা দিয়ে লাফ দেয়। এরপর বাসটি আরও গতি বাড়িয়ে বাসস্ট্যান্ডে চলে যায়।

তিনি বলেন, ঘটনাস্থল থেকে স্থানীয় দুজন আমার শ্যালিকাকে উদ্ধার করে দিরাই হাসপাতালে ভর্তি করেন। তার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সেখানের চিকিৎসকদের পরামর্শে আমরা ওসমানীতে নিয়ে আসি।

তরুণীর বোন জামাই বলেন, বাসস্ট্যান্ড থেকে পুলিশ বাসটি আটক করেছে। তবে এখনও চালক ও হেলপারকে ধরতে পারেনি। যদিও আমরা বাস মালিকদের সহায়তায় চালক ও হেলপারকে চিহ্নিত করে তাদের ছবিও পুলিশকে দিয়েছি