অনশনরত শিক্ষানবিস আইনজীবী: দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস আইনমন্ত্রীর

প্রকাশিত: ২:৪৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২০

সিলেট টাইমস ডেস্কঃ প্রিলিমিনারি উত্তীর্ণ শিক্ষানবিস আইনজীবীদের লিখিত পরীক্ষা মওকুফ করে মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে মেধা যাচাই করে অ্যাডভোকেট হিসেবে তালিকাভুক্তির বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের সঙ্গে দেখা করেছেন অনশনরত শিক্ষানবিস আইনজীবীরা।

বুধবার রাতে আইনমন্ত্রীর বনানীর বাসায় প্রায় পাঁচ শতাধিক শিক্ষানবিস আইনজীবী দেখা করেন। এ সময় মন্ত্রী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তাদের দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস দেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদের আহ্বায়ক ফজলে রাব্বি স্বরণ।

তিনি বলেন, আমরা দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করে রাত ৮টার দিকে মন্ত্রীর দেখা পাই। তিনি আমাদের বলেছেন, আমাকে ৪৮ ঘণ্টা সময় দাও, আমি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে তোমাদের অনশন ভাঙ্গানোর ব্যবস্থা করব।

শিক্ষানবিস আইনজীবীদের আন্দোলনের ১০০তম দিনে ১২ অক্টোবর সোমবার থেকে রাজধানীর প্রেসক্লাবের সামনে আমরণ অনশনে বসেন তারা। বাংলাদেশ সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদের ব্যানারে প্রেসক্লাবের সামনে আজ বুধবার ৩ দিনের আমরণ অনশনের শেষ দিন ছিল।

আন্দোলন কতদিন চলবে এমন প্রশ্নে বুধবার শিক্ষানবিস আইনজীবীদের প্রধান সমন্বয়ক একে মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, আন্দোলন কতদিন চলবে এটা নির্ভর করছে আইনমন্ত্রণালয়ের নীতি-নির্ধারকদের ওপর। আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহানুভূতি কামনা করছি। ইতোমধ্যে আইনমন্ত্রী আমাদের দাবিটি মেনে নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে ফাইনাল করবেন। আজ আমরা সুপ্রিম কোর্টের অ্যাটর্নি জেনারেলের সঙ্গে দেখা করেছি। তিনিও আমাদের প্রতি সহানুভূতি এবং সমর্থন ব্যক্ত করেছেন। আইনমন্ত্রণালয়ের সচিবও আমাদের দাবির পক্ষে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছেন।

দাবিটি যৌক্তিক উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিগত চার বছর ধরে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের অ্যাডভোকেট তালিকাভুক্তির পরীক্ষা না হওয়ায় আমরা চরম হতাশাগ্রস্ত এবং মানবেতর জীবন-যাপন করছি। প্রিলিমিনারি উত্তীর্ণদের মধ্যে ইতোমধ্যে ৩০ থেকে ৩৫ জন নানা কারণে মৃত্যুবরণ করেছেন। এছাড়াও বর্তমানে প্রায় ৫ শতাধিক শিক্ষানবিস আইনজীবী করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

তিনি বলেন, করোনা মহামারীর এই সংকটে মানবিক দৃষ্টিকোন থেকে আমরা যারা ৯০ হাজার পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১২ হাজার ৮৭৮ জন প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছি তাদেরকে পরিস্থিতি বিবেচনা করে লিখিত পরীক্ষা থেকে অব্যাহতি দিয়ে ভাইভা পরীক্ষার মাধ্যমে মেধা যাচাই করে অ্যাডভোকেট হিসেবে তালিকাভুক্তির সবিনয় আবেদন করছি।

বাংলাদেশ সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদের আহ্বায়ক ফজলে রাব্বি স্বরণ বলেন, আজ আমাদের আন্দোলনের ১০২ তম দিন। আপনারা জানেন আমাদের দাবির সঙ্গে অনেকেই একমত হয়েছেন। আমরা আশাবাদী আইনমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী আমাদের দাবিটি মেনে নিয়ে আইন পেশায় নিয়োজিত হওয়ার সুযোগ করে দেবেন।

তিনি বলেন, সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্কুল/কলেজের পরীক্ষার ক্ষেত্রে অটোপ্রমোশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ফলে আমাদের দাবিটি যে যৌক্তিক সেটি প্রমাণিত হয়েছে। আমাদের যৌক্তিক দাবির পক্ষে ইতোমধ্যে জাতীয় সংসদে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ আশ্বাসও দিয়েছেন।
প্রসঙ্গত শিক্ষানবিস আইনজীবীরা এর আগে ৯ জুন দেশের প্রত্যেক জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি জমা দেন। ৩০ জুন দেশের সব প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন। এরপর সুপ্রীম কোর্টের সামনে, বার কাউন্সিলের অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনেও অনশন করেন।