জগন্নাথপুরে ফের ধর্ষণ, অভিযোগ দায়ের

প্রকাশিত: ১:১৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৩, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টারঃ জগন্নাথপুরে তরুণীকে ধর্ষণ ও তার বাবাকে মারধরের ঘটনার প্রধান আসামি শামীম আহমদের পর এবার তার মামা আবদুল খালিছ (৪৮)এর বিরুদ্ধেও তিন সন্তানের জননীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার (১২ অক্টোবর) এ ঘটনার তদন্তে নামে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ।

এর আগে শনিবার রাতে নির্যাতিত গৃহবধূ বাদি হয়ে আব্দুল খালিছের বিরুদ্ধে জগন্নাথপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ এলাকাবাসী ও ধর্ষণের শিকার গৃহবধূর অভিযোগ থেকে জানা গেছে, ধর্ষণের শিকার গৃহবধূর স্বামী একজন সহজ সরল ও কর্মক্ষমহীন লোক হওয়ায় বিয়ের পর থেকে স্বামীকে নিয়ে গৃহবধূ বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেন। এ সুবাদে গ্রামের প্রভাবশালী ব্যক্তি আবদুল খালিছ গৃহবধূকে প্রেমের প্রস্তাব দেন।

এতে রাজি না হওয়ায় গত ৩ এপ্রিল রাতে গৃহবধূকে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। বিষয়টি লোকলজ্জার ভয়ে কাউকে না জানালে আবদুল খালিছ আরো বেপরোয়া হয়ে উঠে। শুধু তাই নয়, আবদুল খালিছ ওই গৃহবধূর ঘর থেকে কৌশলে তাদের ভোটার আইডি কার্ড, বিয়ের কাবিননামা ও জায়গার জমির কাগজপত্র নগদ ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে যান। এছাড়া ব্যাকমেইলিং এর মাধ্যমে ইচ্ছের বিরুদ্ধে একাধিকবার গৃহবধূকে ধর্ষণ করে। গত ৯ অক্টোবর রাতে ঘরে ঢুকে অভিযুক্ত আবদুল খালিছ গৃহবধূর স্বামীর গলায় চুরি ধরে সন্তানদের এক ঘরে আটকে রেখে আবারো জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

গৃহবধূর মা স্থানীয় সংরক্ষিত ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যা শরিফুল বেগম জানান, ৫ সন্তানের জনক আব্দুল খালিছ একজন লম্পট ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। তার ভয়ে কেউ কথা বলে না। আমার মেয়েকে ভয়ভীতি দেখিয়ে দিনের পর দিন ধর্ষণ করেছে।

জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জানান, এ ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়ে এস.আই ফিরোজ আহমেদকে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি ঘটনাটি তদন্ত করছেন। তদন্তের আলোকে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে